Skip to main content



খেজুরে লেখা : রঙ্গন রায়

খেজুরে লেখা

"খেতে পারি কিন্তু কেন খাবো" এই স্লোগান তুলে কেউ কেউ যদি আমরন অনশনে বসে পড়ে তবে সে বিষয়ে আমাদের কিছু বলবার নেই। পানু শেষ হয়ে গেলে যেমন চটি গল্পে কাজ চালিয়ে দিতে পারি সেই দৃষ্টি তে তোমার দিকে তাকাতে পারিনা বলেই তুমি আমার মন খারাপ করে দিতে জানো। আমি আন্দোলন টান্দোলন করিনা কোনদিন। সেরম ভাবনা বারবার বিপ্লবের কথা মনে পড়ায়। এই যেমন এই লেখাটাই ধরা যাক, মানে কথা "লিখবো লিখবো করছি কিন্তু লিখতে পারছিনা" গোছের এক জগাখিচুড়ির জন্ম দিচ্ছে। তো খেঁজুরে আলাপ ব্যাতিরেকে এবার যদি 'ফেবুর' দেওয়ালে একটা গরম গরম স্ট্যাটাস জুড়ি তো বেশ হয়। রস বোধ কে দুরে ঠেলে কট্টর ভাবে যদি লিখে দিই, "অনেক হয়েছে ধর্মনিরপেক্ষতা, এবার একটু হিন্দু রাষ্ট্র হওয়া যাক।" তবে প্রথমেই তথাকথিত হিন্দুরা চরম খিস্তি খেউর শুনিয়ে আমাকে আনফ্রেন্ড করবেন। মুসলিম দের তুলনায় লক্ষণীয় ভাবে হিন্দুরা আমাকে দুষবে শিবসেনার খোঁচড় বা আর.এস.এস এর চ্যালা বলে। আহাহা "আমি কোন পথে যে চলি কোন কথা যে বলি" -  কিছুই বলবার নেই বলেই এতকথা শুনিয়ে দিচ্ছি, তাহলে ভাবুন তো বলবার থাকলে কি কেলেঙ্কারিই না বেঁধে যেতো!!!
আবার এই কথাটাও আমি ভেবে পাইনি যে কেউ কেউ বলছেন "অর্থই অনর্থের মূল" আবার কেউবা "একমাত্র অর্থেরই অর্থ রয়েছে বাকি সব অর্থ হীন" নাকি রামকৃষ্ণ দেবের বাঙ্গাল সংস্করণ টাই মেনে নেবো "ট্যাহা মাটি মাটি ট্যাহা।" 'নাহ! সত্য সেলুকাস কি বিচিত্র এই দেশ'!
আরও একটা বিষয় আমার কাছে গোলমেলে ঠেকে যায় তা হলো 'তেন ত্যাক্তেন ভুঞ্জিথা'।শঙ্করাচার্য্য ও ম্যাক্সমূলার এর সমাধান করে যাননি। মানে যেতে পারেননি। সন্ন্যাসী রা যেমন বলেন 'নি:স্বার্থ ভাবে ভালোবাসো।'আমি যদি কোন মেয়ে কে ভালোবাসি আলবাত নি:স্বার্থ ভাবেই বাসবো তবে সন্ন্যাসী দের কথা বাবদ আমি ভোগ করতে পারবো না, অর্থাৎ প্রকৃতির শ্রেষ্ঠ সারায় আমি উত্তর দিতে পারবোনা। জোরজবরদস্তি নিজেকে অবদমিত করবো, প্রকৃতির সাথে বেইমানি করবো। প্রসঙ্গক্রমে আমি যদি সেইসব সন্ন্যাসী দের বেইমান বলি তবে আমি যে রামকৃষ্ণ মিশনের ছাত্র সে কথা কেউ বিশ্বাস করবেনা। আমি সন্ন্যাসী বেষ্টনে মানুষ হয়ে এখন তাদের বিরুদ্ধে কথা বললাম অর্থাৎ বিদ্রোহ ঘোষণা, এতবড় বিশ্বাসঘাতকতা ওনারা মানবেন কেন? জুলিয়াস সিজারের মতো ওনারা নিশ্চয়ই বলবেন না, "ইউ টু... ব্রুটাস!!!" আমি আবার পালিয়ে বেড়াবো মুখ লুকিয়ে - জলশহর থেকে তিলোত্তমা।
আহা, নীলাব্জ কি লাইন শুনিয়ে গেলো এইমাত্র - "আমি ভিজলে কেউ ভেজেনা, তুমি ভিজলে পুরো শহর ভিজে যায়।"
কদ্দিন নাটকের রিহার্সালে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছি,
কবিতা লেখা ছেড়ে দিয়েছি
জলপাইগুড়ি শহরে থাকা ছেড়ে দিয়েছি... দূর মফস্বলে হোস্টেলের ঘরে-দেওয়ালে দেওয়াল লিখন হয়ে উঠছে আমার একমাত্র জীবন যাপন। এখন আর কিছু বলবার অবকাশ নেই, তুমিও শোনবার অবকাশ হারিয়েছো কিছুদিন। কিছু দিনেই কিরম পাল্টে যাচ্ছে ডিয়ার, "হাইলি সাসপিশাস"!!!








   রঙ্গন রায়

Rangan Roy

Comments

Like us on Facebook
Follow us on Twitter
Recommend us on Google Plus
Subscribe me on RSS