Saturday, February 4, 2017

চারটি লেখা নিয়ে এসেছেন : সীমিতা মুখোপাধ্যায়

আভেমারিয়া

তোমার মা এলে
সব দুঃখ কেচে দেবে,
শুকিয়ে রাখবে তোমার ক্ষত,
আয়রন করে দেবে
তোমার এলোমেলো মুহূর্ত।

কাকিমা চলে গেলে
আমিতো মার হাতে-পায়ে
পেরেক ঠুকে দেবো আবার,

আর বলবো -
আয় রে, সখা,
দুজনে মিলে এবার
পিয়েটা মূর্তি ধরি!




আমি কিম্বা অপেক্ষা

তোমাকে দুধ ভাত;
আজকাল আমি আর অপেক্ষা
এক সাথে শপিং-এ, বিকেল হাঁটতে।

অপেক্ষার মধ্যে পটাশিয়াম সায়ানাইড
মিশিয়ে দেখেছি,
একটা নতুন ধরণের ধোঁয়া-
কেমন মহুয়া মহুয়া…

দুজনে দুটো ধারালো ছুরি হাতে,
আমি আর অপেক্ষা
পাশাপাশি শুয়ে খুনসুটি করি!

একদিন গাছের নিচে দাঁড়িয়ে প্রশ্ন করেছিলাম,
আমি মরে গেলেও কি
অপেক্ষা বেঁচে থাকবে?

এসব জিজ্ঞাসায় কিছুটা বোরাক্স মিশিয়ে
তাপ দিলে

দেখবে কেমন খই ফুটছে সোহাগে!






নেমেসিস

সরোবরের জলে হেঁটে চলেছেন দেবী,
আমার চোখের তারা বড় হচ্ছে ক্রমশ…

শুধু একবার বলো,
তোমার নাম বিষন্নতা,
বলো, তোমার নাম আচ্ছন্নতা-

না হয় মিথ্যে করেই বলো,
আমার রক্তে রক্তে
খেলছো তুমিই।

ঠোঁটে ঠোঁট নাইবা হলো,
মা বলেছে, আগুনে

কোনো দোষ নেই!





ভাগফল

একটি প্রকাণ্ড বাদশাহি আংটি
ঘষে ঘষে নিচ্ছে বন্ধুত্বের তালব্যশ,
রঙিন স্কার্ফে জড়িয়ে নিয়েছো
আমার কনে দেখা আলোটুকু,
ক্রমশ ঘন হচ্ছে
তোমাদের যত রাজ্যের সব ঈশপের গল্প-

ঈর্ষা নয়, সুচেতনা,
তোমার জল বিভাজিকা ধরে হাঁটতে হাঁটতে

আমার বর্ষা এসে যায়!














সীমিতা মুখোপাধ্যায়

Simita Mukherjee