Like us on Facebook
Follow us on Twitter
Recommend us on Google Plus
Subscribe me on RSS

Astanirjan Dutta

জাহাঙ্গিরকে লেখা কবিতা

()
সন্ধ্যে হয়ে আসাটা বলা যাক লিরিক্যাল
এই যেনকেউ একটু ঝাঁট দিয়ে দিল
চায়ের কাপ ধুয়ে রাখছে মা -
সন্ধ্যে হচ্ছে
অর্থাৎ
আলো চলে যাওয়া ও চলে আসার একটা নুমায়িশ
তার মধ্যে থাকা একটু ধুনধুনো , অভ্রকুচি
আর
তুমি গ্রীনল্যান্ড গেলে এটা মিস করবে
অর্থাৎ
হয়ত সন্ধ্যা নয় ধুন নয় ধুনো নয়
এখানে কোনো উৎসেচক জেরুজালেমের মত কাজ করে
একলা

মানুষ বুঝতে পারে তার মাথা ও ফিলামেন্ট
চোখ ও চশমা
পা ও হাওয়াই চটির মধ্যে
দু’ একটি প্রো ও মেটাফেজ
অনবরত পায়চারি করে যাচ্ছে

অর্থাৎ জাহাঙ্গির,
চায়ের কাপ ধুয়ে রাখছে মা এ দৃশ্যে যতটুকু ক্লান্তি
তা সেল দিয়ে তৈরী...





()
আমি ছোট ছোট ফুঁগুলোকে যেতে দেখি
তারা রান্নাঘর খুঁজছেগলি গলি

ফুঁ এর মধ্যে কি কোমল মাংস লেগে থাকে
একটু আদা রসুন পেস্টজিরাবাটা হলদি লাগিয়ে
এরপর সেদ্ধ হবে

বুড়ো পাইনগাছপাইনগাছের তলায় রসুই
সেও পাইন
কোথাও কাঠগুলো আলাদা হচ্ছেতার গন্ধটি সোঁতা
আরফুঁগুলো এখনো এই অবেলায় ঘুরে বেড়াচ্ছে ঠিক
এক ফার্লং দু ফার্লং
   রাস্তার দুপাশে ফুটেছে ছিটছিটে ফুল

আকাশের অনেক উঁচু দিয়ে দুটো পাখি উড়ে গেলে কি
মনে হয় - জাহাঙ্গির
ওরা সুইসাইড করবে !

ওহ মনে পড়ে গেলো
আসলে তুমি মাউথঅর্গান বাজালে একটা ঘর বাজাও





()
এখন জ্বর এলে মনে হয় একটা ব্যবহার খুলে যাচ্ছে
বহুদিন অনাদৃত একটা গ্রীষ্মাবকাশ
তৃণ শষ্ক ও মাদুরকাঠিতে এই ভাষা ছিল
শান্ত ওঁ স্থিত
সামান্য ও সামান্য এখন খুলে যাচ্ছে
বহুদূরে দাঁড়িয়ে আছে মা আমার
জলবাতাসা হাতে

জাহাঙ্গির,
এই পিতলের গ্লাস স্থিত জল ও বাতাসা
টুকু ইনস্টলেশনমনে হয়
পিত্তস্থলীযকৃৎ ও গলব্লাডার হয়ে কোথাও কেমন
আদর ভরে ছিল - ভাপে উড়েছে
আর,
মোরাম বিছানো রাস্তা দিয়ে তুমি চলে যাচ্ছ
কিরকির করে উঠছে পা
ও পায়ের ফর্মএখানে যে কোনো ফর্মের কথা ভাবা যাক
সমস্তই তদগতভর্তি - সন্ধে হচ্ছে

চটি ঝাঁকিয়ে কাঁকর ফেলে দিচ্ছ তুমি








   অস্তনির্জন দত্ত

Astanirjan Dutta

Popular Posts