Jyotirmoy Shishu

Jyotirmoy Shishu

Suvadip Chakraborty

সেই সারারাত অসংলগ্ন বৃষ্টি যাপনের পর...

দেওয়াল জুড়ে একটা আয়না দেখা গেল। আয়না জুড়ে নিজেকে খুঁজতে গিয়ে ফুলগাছ খুঁজে পেলাম। আয়নার পিছন থেকে একটা টিকটিকি ডেকে উঠলো, “টিকটিকটিক।” .... সেই ডাক শুনে এগোনো যায়। আাঁধারেঅন্ধকারেঅমাবস্যায়।

জিজ্ঞেস করলামএই পথে মৃত্যু আসে কিনাউত্তর এলো, “ঠিকঠিকঠিক”। অগত্যাযেই পথে মৃত্যু আসেসেই পথ জুড়ে অমাবস্যা রাতে আমি প্রদীপ জ্বালতে থাকি। নিজের নাম ধরে ডাক দিই, “দীপ! দীপ! শুনতে পাচ্ছো তুমি?”... ভিতর থেকে সাড়া আসেঠিক পাঁচ মিনিটের দূরত্বে, “অন্ধকারে শ্রবণ ক্ষমতা বেড়ে যায়বলো”... আমি বলতে পারিনা কিছু। শুধু নিজের অস্তিত্বের উপলব্ধি স্বস্তি দিয়ে যায় খানিক। সেই স্বস্তিতেপ্রদীপ জ্বালতে থাকি।

... সেই আলোয় অ্যাক্রিলিকে ছবি আঁকা হবে। বিশাল একটা পোর্ট্রেট। আকাশসম বৃহৎ একটা ক্যানভাস!... রং ঢেলে গুলতে থাকি প্যালেটে। আর আমার গণতান্ত্রিক মন সমাজতান্ত্রিক শরীরের কথা ভাবতে বসলেরঙের মিশেলে ভুল হয়ে যায় কেবল। প্যালেট সুদ্ধু ছুঁড়ে মারি ক্যানভাসে। রং ছিটকে যায়গড়িয়ে পড়ে সরীসৃপের মতন শান্ত নীরব হিংস্রতায়... আয়নায় চোখ পড়তেই পিছন থেকে টিকটিকি ডেকে ওঠে, “ঠিকঠিকঠিক”...

সুতরাং ঠিক করলামনামের প্রথম দু’টো অক্ষর যদি বাদই দিয়ে দিই! আজ থেকে শুধু “দীপ” নামটাই আমার জন্য আমার নিজের। অধিকার হলোঅধিকার। অর্জন করে নেবার জন্য দরকার শুধু একটু অধিকারবোধ... শুধু আজকাল রাতে ঘুম আসতে দেরী হয় এই ভেবে যেমনসুন সত্যিই বড় বেয়াড়া!মাটি ফেটে চৌচির উত্তরেউত্তর-পশ্চিমে। কৃষকের আত্মহত্যা ইনক্রিসিং রেটে বাড়ছে… আরব সাগরের উপর দিয়ে আসো মেঘজলকনা ভরে নাও গর্ভে। পাহাড়ের মাথা থেকে ঘন হয়ে আসো। এই অভাগা দেশে এখনও বর্ষাই মঙ্গল! আজ তোমাতে-আমাতে 'মেঘদূতনয়একটা 'বর্ষামঙ্গললেখা হোক বরং! কী বলোকোয়াইট রিসনেবল্!!








   শুভদীপ চক্রবর্ত্তী
Suvadip Chakraborty