Jyotirmoy Shishu

Jyotirmoy Shishu

Nirzhar Noishabdya

তোমার নাম কে রেখেছে

অহ ঝিলের ডাহুক! তোমার নাম রেখেছে কে বলো। আকাশছেঁড়া বৃশ্চিক নামোডাহুকটিকে মুছে দাও বাতাসের সিঁথি থেকে। বাতাসের সিঁথিতে রক্তের দাগ। অহ দাগ! কে দিলো তোমার অনতি দীর্ঘ আকারঅপর যাতনায় ভরে গেলে সকল কুসুমের ভারÍঅস্ট্রিক চোখে ভর করে সহসা বিদ্যুৎ। ডাহুকের কাজ নেইহাওয়ামিলে নর্তকী টারবাইন চক্রাকারে নাচে আমৃত্তিকা। মুঠোর ভিতরে বিজলি নিয়ে ফুরিয়ে যায় ওঙ্কার। অহ ওঙ্কার! তোমার নাম কে রেখেছে বলো।



আমিও মৃত

তোমাদের দেশে একদিন আমরাও রক্তজবার চাষ করবোএই বাগান যেদিন অরণ্যে পরিণত হবে। দশদিগন্ত ঢেকে যাবে এমন লালে যে চোখ খুলেই চমকে উঠবেআর চোখ বুজে বুকে ভাঁজ করে রাখবে তোমাদের কম্পমান হাত। সেই হাতের ভাঁজ ঠেলে নীরবে খসে পড়বে তোমাদের সমগ্র পাঁজর। আকাশের পিঠে তেতে উঠা শ্যাওলার ঝাঁক তোমাদের দেখে হাসবে। সেইদিন জেনোআমার সঙ্গে সে থাকবেসে ঝরাপাতা মাড়িয়ে আমার মতোই এসেছিলো তোমাদের দেশে। আমাদের হাতের মুঠোয় থাকবে হোরাসের দুইচোখপায়ের পাতায় লেগে থাকবে অমরাবতীর ধুলো। আমরা প্রতিরাতে তারার রাত এলে জুনিপোকাদের ছবি এঁকে আকাশে সেঁটে দেবো। এইসব ভেবে ভেবে সেও মরে গেছেআমিও মৃতমৃত্যুর আড়ালে এখন আমরা সকলি বিস্মৃত।

নির্ঝর নৈঃশব্দ্য
Nirzhar Noishabdya