Jyotirmoy Shishu

Jyotirmoy Shishu

Rangan Roy, Puja Nandi, Adrija Paul

অপুর সংসারের লেখা


অনেকক্ষন হাঁটার পর বসতে ইচ্ছে করতেই পারে তা বলে... ডিভাইডার? ভাবছি কি লেখা যায় করলার ধারে, ল্যাম্পপোস্ট এর আলো ছিল শুধু আর আমরা... বাওয়ালিও লেখাই যেতো এভাবে চুল ছাড়া রাতের সাথে তবে বেইমানি হয়ে যাবে... আমরা একটা শব্দ শুনছি। তুমি কি শুনতে পাচ্ছো? না না করলার হাওয়ার কথা বলবো না গো, এ কুলকুল শব্দও নয়। বরং অনেকদিন পর দেখা কচুপাতার ফাঁকে যে জোনাকি বসে আছে তার ডানার শব্দ। আমি কি ভুল শুনছি? নাহ! এ হতে পারেনা, তুমি কি আমায় জোনাকির আলোটুকু এনে দিতে পারবে?... দেখাটা বাড়াতে পারছি না। আটকে গেছে কোন অজানা বেড়া জালে... করলা শান্ত, ঝড় তো আমাদের মাঝে কিন্তু কিসের? রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা এক যুগল ঠিক যেন তোমার ছোঁয়া পেলাম... এই ছোঁয়া পেয়েই নির্ঘাৎ রবীন্দ্রনাথ গেয়েছিলেন "একটুকু ছোঁয়া লাগে একটুকু কথা শুনি", এভাবেই কত কত কথা কত তুমি বারবার প্রিয় হয়ে উঠতে জানো... তোমার এপার ওপার সবটাই যেন তোলপা, আমার ভাঙন যেন কিছুতেই ছুঁতে পারেনি তোমায়… সবটাই কেন তুমি পর্যন্ত এসে থেমে যায়? তোমার বাইরে বেড়োতে চাইলে হাঁপিয়ে ওঠে এই ব্রীজ এই রাস্তা পুরনো স্কুল - পুরনো স্মৃতি। আমাদের গল্প তোমার থেকে শুরু হয় আর তুমি পর্যন্ত এসে থেমে যায়... কখনো একটু পৃথিবী হারিয়ে যাবে আমার মস্তিষ্কে, কখনো তুমি আরো বাঁশি বাজিয়ে উঠতে পারো। হে তুমি, তোমার কি কোন তুমি নেই?... কিছু পুরনো গন্ধ মনে পড়ে গেলো, স্কুলের ঘন্টা আর তোমার সাইকেলের চাকার ছন্দ মন্দ ছিলনা বইকি, আবারো থমকে গেলাম তোমায়, তুমি কে?... তোমায় খুঁজতে খুঁজতে একদিন নিজেকেই হারিয়ে ফেলবো বোধহয়, শব্দের ফাঁকে একদিন গলে গিয়ে মুছে দিতে চাইবো সমস্ত অন্ধকার, দেখবে আমি কেমন হারিয়ে যেতে পারি অন্ধকারের নাগপাশে, এই যে স্ট্রীট লাইট গুলো আলো দেবে বলে দাঁড়িয়ে আছে তাদের দেওয়া বোধহয় কোনদিন ফুরোবে না... আমরা তো রাস্তার বাইরে বসে, এটা কি টাইমলাইন না ট্রাম লাইন? গুলিয়ে ফেললে চলবেনা এ জলশহরে, দৃশ্যত অন্ধকার আর ধ্রুবতারা সন্ধিক্ষণে তুমি চুল খুলে হেঁটে গেলে একাএখনো গন্ধ ছড়িয়ে আছে বিলাসবহুল শ্যাম্পুএত রাত্রেও...

রঙ্গন রায় (Rangan Roy)
পূজা নন্দী (Puja Nandi)
অদ্রিজা পাল (Adrija Paul)