Puja Nandi

যাপন এড়িয়ে
১.
তুমি উঠে আসো দীর্ঘ চেনা ঋতু ধরে
সব মেধারই ইতিবৃত্ত এখান থেকে শুরু
ঠিক যেমন অন্যরকমেরও এখান হয়

মোকাবিলায় কেবল ভীত হওয়া...

২.
কিভাবে লেখব জানিনা
তবু লিখতে চাই
এভাবে বলতে পারি 
উন্মাদ অর্থে তোমাকে চিনি 
প্রতারনা চিনি 
অবাক বলে কিছু হয় না
শুধু মাটি হতে পারি

ভাবা যায় সময় অদ্ভুত
তবু কোথাও ধুলো মেশে আবর্তনের সাথে
মিশে যায় কান্নায়
তোমাকে চিনিয়ে দেয়
হাওয়া বদল

এ হাওয়া যতু গৃহে
ভালো থাকা নয়
পসার সাজিয়ে জ্বলে
যাবে কৃষ্ণ প্রেম
আর ঠোঁট পুড়ে যাবে
রাধার মতন
আসলে অস্তিত্ব হীন
অবস্থায় কুঁড়ি
যা আবার ফুটে উঠবে...

৩.
আমার সাদায় আকাশের রং মেশে
সমস্ত সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেই সেখানে
যেখানে  ছোঁয়া যায়  না জন্ম
লেপটে থাকে না মৃত্যু

ক্ষুদ্র অপরাধে শুধু বিদ্রোহ ঘোষনা.... যেন সচেতনউপস্থিতি অর্থে...




পদব্রজেই
১.
এভাবে লেখা হোক সময়
সমস্ত রাত্রি শুষে নেওয়ার পর
গড়িয়ে পড়ুক নাভি
ধরা পরে যাবে কোনো গর্ভের কাছে
একদিন যা কিছু না বলা ছিল
তাও বলে উঠবে

মাঝরাতের স্বপ্নে অবশিষ্টের দুফোঁটায়...


২.
হাঁটতে শিখছি সবে মাত্র
জ্বালা ধরা চোখ নিয়ে
 
কতটুকু জেনেছে তার ছোবল

আমি ও আমার নীরবতা ঘিরে
যে প্রশ্ন করা যায়
 
আর একটু এগোলে
সে সবের শব্দ পাবে

রাস্তার কিনারে গাছ যেন
এইমাত্র
তার সাক্ষী হলো...


৩.
যেন আমি জানতাম
এমনটা হবে
যেন আমি চাইলেই লিখে ফেলতে পারি
রাত ও রজনীর কথা

যাতায়াত অর্থে উঠে আসে হাঁটা
চলার বিন্যাস থামিয়ে হাঁটাই সার
এভাবেও চলা যায়
 
তার কিছু কি জানা ছিল



কথাদের কথা

১.
বলো বললে আর কিছুই বলার থাকে না
যেন পরের পাতায় পৌছে যাওয়া যায় কথাদের ভাঁজেকিছু হুম বিষয়ক বক্তব্য ব্যক্তিগত হয়ে ওঠেএকটা বেলপাতা স্নানের ঘরে স্নিগ্ধ হয়ে এলেআমি ভিজিয়ে দিতে পারিনা সেসব অনুযোগদের

বিস্তর আমির মাঝে সংজ্ঞা হীন তোমার ঢেউ

কেবলই উছলে ওঠে লাল চায়ের কাপ অথবা সর্ষেক্ষেতধেয়ে আসার বহর সাজানো সোপান তছনছ করেবাদ পড়ে যায় পর্বত প্রমাণ চূড়ান্ত কথোপকথন...



২.
এত আষ্ঠেপৃষ্ঠে উঠে যাচ্ছে শরীরে
রুহু না তুমি পর্যন্ত এসে থেমে গেছে
গড়িয়ে যাচ্ছি জলের ভেতর
গরাদের ওই প্রান্তে কিছু যা কিছু ভালোবাসা জমে আছে
শতাব্দীর শেষে আরও একটু বেড়ে ওঠে
ভেতরে ঢুকে যেতে দেখি অভিশাপ গুলোকে

পড়ে পড়ে বাসি হয়ে আসছে অঙ্গভঙ্গী
ধার করা জানালা তোমাকে উপহার দেব বলে তুলে রেখেছি
ভাসতে চাইছি ভালো থাকার নতুন কোনো সংজ্ঞায়
তবু কিছু হক আপনি বেড়ে ওঠে
বসে যায় গত জন্মের হিসেবের খাতা নিয়ে

ভালাবাসার রোদে খারাপ থাকা শুকিয়ে নিলে অনুভব ভিজে ওঠে
আর যদি অনুভব শুকিয়ে নাও
তবে খারাপ থাকারা ভেজে
এভাবে মাঝে মাঝে মূর্ত  আমিকে বিমূর্ত হয়ে যেতে দেখি
আর তোমরা আমার অবস্থান নির্ণয় করতে গিয়ে ছায়ার সাথে কথা বলো

এভাবে ভেবো না স্বাধীনতা হারানোর কথা
এভাবে ভেবোনা বন্যার কথা
এভাবেও ভাবতে পারো আজন্ম মানুষ জন্মের কথা....



৩.
কিছু গন্তব্য তোমার থেকে শুরু হয়
সব গন্তব্য তুমি নও
ঠিক যেমন বাঁকের পর বাঁক আসে সশব্দে
আর শহর জুড়ে কেবল গল্প লেখা বদলের
এবার বেশক উঠে পড়া সকাল হতে পারো

কখনো এক বিকেল থেকে অন্য  বিকেল যেভাবে গন্তব্য হতে পারে...









  পূজা নন্দী


Puja Nandi