Skip to main content



Supriyo Mitra

তিনকাল
১.
মাঝেমাঝে চিঠি আসে...
কী বলো? কেমন আছো?  
চেনা বন্ধুর সাথে কথা হয়?  
নানাবিধ প্রশ্নের পরে শব্দের স্ফীতগাঁট
শিথিল হয়ে আসে,
আমাদের উত্তর ক্রমশ এ পাড়া থেকে জেলা হয়ে
জেলা থেকে অন্য এক জেলার নদীর এপাড়ে এসে
ওপারে আলাদা হয়ে যায়...

সাপের জিভের মতো যে রাস্তা সোজা হয়ে
দুই পাশে চিরে আরও সোজা হয়ে দূরে চলে গেছে
যতটুকু চোখ যায়, সেখানেও নদীভাব...
ফুটপাত পৃথক হয়ে নুড়ি ধুলো চালাচালি করে,
দ্বিমাত্রিক ব্রীজ হয়ে জেব্রা ক্রসিং আসে
পারাপারে কথাটুকু বলে....

এসবও তো ভাগাভাগি...
শব্দ, পায়ের ধুলো, কামাশ্রু, বেদনা বিপাক

ওদের কপালজুড়ে ব্যথার সড়ক খোলা থাক!


২.
পাগল ছেলেটি এর কিছুই বোঝেনা প্রভু
চিঠির কাগজ মুখে ঘষে নিয়ে নাক মোছে
পারাপারও ভুলেছে স্বভাবে
'স্বজন' শব্দ শুনে আকাশের দিকে পাতে কান
দু চোখ চেঁচিয়ে দ্যাখে পা...
আমরা তো - যা গেছে তা যাক

সমস্ত ধারা ভেঙে,
পাগল লোকটি এক নিরাকার পাগলিনী পাক....  


৩.
পত্রপাঠের শেষে তোমায় সম্বোধনে
নিজেকেও ডেকে ফেলি প্রিয়...
সে ভুলের ক্ষমা হউক,
চিঠি পেলে উত্তর দিও, প্রভু
চিঠি পেলে উত্তর দিও....











সুপ্রিয় মিত্র

Supriyo Mitra

Comments

Like us on Facebook
Follow us on Twitter
Recommend us on Google Plus
Subscribe me on RSS